রংপুরে নর্দান মেডিকেল কর্তৃপক্ষের প্রতারণার অভিযোগে শিক্ষার্থীদের মানববন্ধন ও বিক্ষোভ

জালাল উদ্দীন/লিগ্যাল ভয়েস টোয়েন্টিফোরঃ

রংপুর মহানগরীর নর্দান প্রাইভেট মেডিক্যাল কলেজ কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে প্রতারণার অভিযোগ এনে বিক্ষোভ ও মানববন্ধন করেছে শিক্ষার্থীরা। সোমবার বিকালে রংপুর মেডিক্যাল কলেজের সামনে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের শিক্ষা বিভাগের সচিব এ এইচ এম এনায়েত হোসেনকে ঘেরাও করে বিক্ষোভ ও মানববন্ধন করেন তারা।
শিক্ষার্থীরা অভিযোগ করে বলেন, নর্দান মেডিক্যাল কলেজে নেপাল থেকে আসা ৪০ জন শিক্ষার্থীসহ সাধারণ শিক্ষার্থীদের কোন আবাসিক ব্যবস্থা ও শিক্ষক নেই, বিএমডিসি এবং রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের কোনও অনুমোদন নেই। তার পরেও প্রায় তিন শতাধিক শিক্ষার্থী এখানে ভর্তি হয়ে লেখাপড়া করছেন। শিক্ষার্থী আরও বলেন, কর্তৃপক্ষ বার বার আশ্বাস দেয়ার পরেও কোর্স পরিচালনায় কোনও অনুমোদন আনতে পারেনি। যারা শেষ বর্ষ পাশ করেছেন তাদের ইন্টার্নশিপের কোনও ব্যবস্থা করতে পারেনি। ধার করা রোগী ও শিক্ষক দিয়ে ক্লাস করিয়ে তাদের প্রতারণার মাধ্যমে শিক্ষা জীবন ধ্বংস করা হচ্ছে বলে অভিযোগ করেন তারা। নেপাল থেকে পড়তে আসা সারমা ও নারমিন বলেন, তারা পড়াশোনা করতে এসেছিলেন। তাদের অনেক ধরনের আশ্বাস দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু তারা এখানে লেখাপড়ার নামে প্রতারণার শিকার হয়েছেন। প্রতিষ্ঠানটিতে নেই শিক্ষক, ধার করা শিক্ষক দিয়ে মাঝে মধ্যে ক্লাস নেয়া হয়।
অপর নেপালি শিক্ষার্থী রামেজ জেটাল বলেন, রবিবার রাত পৌনে ১২টার দিকে আমাদের ৩২ জনকে হোস্টেল থেকে বের করে দেয় বাড়ির মালিক। কেন আমাদের এভাবে বের করে দিল তা আমরা জানিনা।
নর্দান মেডিক্যাল কলেজের পরিচালক আফজাল হোসেন জানান, নেপালী শিক্ষার্থীদের আবাসিক হোস্টেল হিসেবে নুরুল ইসলামের চার তলা ভবনের দ্বিতীয়, তৃতীয় ও চতুর্থ তলার ফ্ল্যাটভাড়া নেওয়া হয়। ১১ মাসের ভাড়া বাকি থাকলেও কিছু টাকা পরিশোধ করে কলেজ কর্তৃপক্ষ। কিন্তু কলেজের ভাবমূর্তি নষ্ঠ করতে একটি অসাধু মহল পরিকল্পিতভাবে এই ঘটনা সাজিয়েছে বলে জানান তিনি। আবাসিক ভবন মালিক নরুল ইসলাম জানান, এই তিনটি ফ্লাটের মাসিক ভাড়া ৬৫ হাজার টাকা হিসেবে গত আট মাসের ভাড়া বকেয়া রয়েছে। এ নিয়ে কলেজ কর্তৃপক্ষকে একাধিক বার অবগত করলেও তাদের কোনো সাড়া পাওয়া যায়নি। ফলে ব্যাংক ঋণের বোঝা থেকে বাঁচতে তিনি শিক্ষার্থীদের আগে থেকেই বাড়ি ছেড়ে দেওয়ার জন্য অনুরোধ করেছিলেন। রবিবার রাতে শিক্ষার্থীরা বাইরে গেলে ভবনের মূল গেটে তালা লাগিয়ে দেন তিনি। ##

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *