এসএসসি পাসেই বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি!

স্টাফ রিপোর্টার / লিগ্যাল ভয়েস টোয়েন্টিফোর :

এসএসসি ও সমমান পরীক্ষার সার্টিফিকেট দিয়েই রাজধানীর বেশ কয়েকটি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের বিরুদ্ধে শিক্ষার্থী ভর্তি করানোর অভিযোগ উঠেছে। শুধু ভর্তিই নয়; একাধিক ইউনিভার্সিটিতে চলমান সেমিস্টারে ক্লাসও করতে পারছেন রেজাল্টের অপেক্ষায় থাকা শিক্ষার্থীরা।বাংলাদেশ বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় সমিতি বলছে, উন্নত বিশ্বে এভাবে ভর্তির সুযোগ দেয়া হয়। তাছাড়া শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের ঘোষণা অনুযায়ী যেহেতু এ বছর এইচএসসি পরীক্ষা হচ্ছে না, তাই হয়তো কিছু বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তির সুযোগ দিচ্ছে। যদিও বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের (ইউজিসি) ভাষ্য, এইচএসসি রেজাল্টের আগে শিক্ষার্থী ভর্তির কোনোই সুযোগ নেই।

বিশ্ববিদ্যালয়গুলো বলছে, যেহেতু এবারের এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষা হচ্ছে না, সেহেতু এবার সবাই পাস করবে। তাই তারা শিক্ষার্থী ধরে রাখতে প্রোভেশনাল (সাময়িক) ভাবে শিক্ষার্থীদের ভর্তি করে রাখছেন। সংশ্লিষ্টদের বক্তব্য, তারা যদি ভর্তি না করান, তবে অন্যরা ঠিকই ভর্তি করিয়ে নেবে। তাই তারা শিক্ষার্থীদের হাত ছাড়া করতে চান না। যদিও ইউজিসি’র নীতিমালা অনুযায়ী, বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির জন্য একজন শিক্ষার্থীকে এইচএসসিতে নূন্যতম একটি জিপিএ পেতে হয়। যা না পেলে কোনোভাবেই সে বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির যোগ্য নয়।

বিষয়টি সম্পর্কে জানতে চাইলে ইউজিসির সচিব (অতিরিক্ত দায়িত্ব) ড. ফেরদৌস জামান শুক্রবার (৬ নভেম্বর) বলেন, আমাদের দেশের আইন অনুযায়ী এইচএসসি রেজাল্ট প্রকাশের পূর্বে বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির কোনো সুযোগ নেই। এভাবে যদি কেউ ছাত্র-ছাত্রী ভর্তি করায়, তাহলে সেটি অবৈধ ভাবে ভর্তি করিয়েছে বলেই বিবেচ্য হবে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, রাজধানীর ধানমন্ডিতে অবস্থিত ইস্টার্ন ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশ, ওয়ার্ল্ড ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশ, উত্তরার কানাডিয়ান ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশ, গাবতলীতে অবস্থিত ইউরোপিয়ান ইউভিার্সিটি অব বাংলাদেশ এবং বসুন্ধরা এলাকায় অবস্থিত ইন্ডিপেন্ডেন্ট ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশ এসএসসি পাসের সার্টিফিকেট দিয়েই শিক্ষার্থীদের ভর্তি নিচ্ছে। এদের মধ্যে কানাডিয়ান ইউনিভার্সিটি ও ইস্টার্ন ইউনিভার্সিটি চলমান ফল-২০২০ সেমিস্টারে রেজাল্টের অপেক্ষায় থাকাদের ভর্তি নিয়ে ক্লাসও শুরু করেছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

ফলাফলের অপেক্ষায় থাকা এক শিক্ষার্থী জানান, আমি কয়েকদিন পূর্বে ইন্ডিপেন্ডেন্ট ইউনিভার্সিটিতে ভর্তির বিষয়ে জানতে গিয়েছিলাম। তারা বলেছে, আমি রেজাল্ট প্রকাশ না হলেও তাদের বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হতে পারবো। এক্ষেত্রে তারা আমার জেএসসিতে প্রাপ্ত জিপিএর ৩০ শতাংশ এবং এসএসসিতে প্রাপ্ত জিপিএর ৭০ শতাংশ ধরে আমার আনুমানিক একটা এইচএসসির রেজাল্ট হিসেব করেছে।

বিষয়টি সম্পর্কে জানতে চাইলে ইন্ডিপেন্ডেন্ট ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশের উপাচার্য (ভারপ্রাপ্ত) অধ্যাপক ড. মিলান পাগন এবং রেজিস্ট্রার এম আনোয়ারুল ইসলামের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তারা কোনো মন্তব্য করতে রাজি হননি। পরে জনসংযোগ ও গণমাধ্যম পরিচালক খন্দকার আমিনুল হক দ্যা লিগ্যাল ভয়েস টোয়েন্টিফোরকে বলেন, ‘আমরা কোনো শিক্ষার্থীকে ভর্তি করাচ্ছি না। তাদের প্রোভেশনাল হিসেবে আবেদনের সুযোগ দিচ্ছি। যদি আপনাকে কেউ এমন তথ্য দিয়ে থাকে তাহলে বিষয়টিকে তিনি ভুলভাবে ব্যাখ্যা করেছেন। এ বছর যেহেতু এইচএসসি পরীক্ষা হচ্ছে না, সেহেতু সবাই পাস করবে। আর এই বিষয়টি মাথায় রেখেই আমরা শর্ত সাপেক্ষে শিক্ষার্থীদের আবেদনের সুযোগ দিচ্ছি।’

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *