চরমোনাই দরবার শরীফে ১২,১৩,১৪ অগ্রহায়ণের ৩ দিনব্যাপী বার্ষিক মাহফিল শুরু

সাইয়্যেদ মো: রবিন / লিগ্যাল ভয়েস টোয়েন্টিফোর :

বরিশালের চরমোনাই দরবার শরীফে শুরু হয়েছে ৩ দিনব্যাপী বার্ষিক ওয়াজ মাহফিল। আজ শুক্রবার বাদ জুমা বয়ানের মাধ্যমে মাহফিলের সূচনা করেন পীর সাহেব চরমোনাই ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের আমীর মুফতি সৈয়দ মুহাম্মদ রেজাউল করিম।

সূচনা বয়ানে পীর সাহেব চরমোনাই বলেন, চরমোনাই মাহফিল দুনিয়াবি উদ্দেশ্যে নয় বরং পথভোলা মানুষকে আল্লাহর সাথে পরিচয় করিয়ে দেয়ার জন্যই এই মাহফিল প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে। এখানে দুনিয়াবি কোনো উদ্দেশ্য সাধনের জন্য আসার প্রয়োজন নেই।

লক্ষ লক্ষ মুসল্লির পদভারে মুখরিত হয়ে উঠেছে কীর্তনখোলার এই ময়দান। ময়দানের সামিয়ানার ভেতরে-বাইরে ছোটছোট জামাতে চলছে ‘লা ইলাহা ইল্লাহর’ জিকির।

স্বাস্থ্যবিধি মেনে সব ধরনের ব্যবস্থা রেখেই আয়োজন করা হয়েছে এবারের বাৎসরিক  মাহফিল।

মাহফিলে পীর সাহেব ছাড়াও ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের নায়েবে আমীর মুফতি সৈয়দ মুহাম্মদ ফয়জুল করীম, সৈয়দ ইছহাক মুহাম্মদ আবুল খায়ের, মোসাদ্দেক বিল্লাহ আল মাদানীসহ দেশের খ্যাতনামা ওলামায়ে কেরামগন গুরুত্বপূর্ণ বয়ান করবেন।

আগামী সোমবার সকাল ৮টায় পীর সাহেব হুজুরের আখেরী মোনাজাতের মাধ্যমে মাহফিলের পরিসমাপ্তি হবে।

চরমোনাই ইউনিয়নের ইউপি চেয়ারম্যান সৈয়দ ইছহাক মুহাম্মদ আবুল খায়ের জানান, তেমন কোন প্রচার-প্রচারণা না থাকলেও চরমোনাই মাদ্রাসা মাঠের তিন-চতুর্থাংশ গতকাল বিকেলের মধ্যে মুসুল্লীতে পরিপূর্ণ হয়েছে। করোনা পরিস্থিতিতে স্বাস্থ্যবিধি রক্ষায় বিনামূল্যে বিতরণের জন্য ১ লাখ মাস্ক রাখা হয়েছে। বিভিন্ন স্থানে হ্যান্ড স্যানিটাইজার এবং হাত ধোয়ার ব্যবস্থা রাখা হয়েছে।

আয়োজক কমিটি সূত্র জানায়, ইতিমধ্যে মাহফিলের প্যান্ডেল নির্মাণসহ যাবতীয় প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়েছে। চারদিকে ধানক্ষেত এবং পানি থাকায় মাহফিলের জন্য মাদ্রাসার মূল মাঠসহ আরও একটি মাঠ প্রস্তুত রাখা হয়েছে। বিদ্যুৎ বিভ্রাট হলে বিকল্প হিসেবে দুটি জেনারেটর রাখা হয়েছে। আগত মুসুল্লীদের ওজু-গোসলের জন্য ২ট পুকুর, ৩ টি সাবমার্সিবল মটর এবং ৬টি গভীর নলকূপসহ সহস্রাধিক পানির কল বসানো হয়েছে।

স্থায়ী ৩ শতাধিক টয়লেট সহ অস্থায়ী আরও ৩ শতাধিক টয়লেট স্থাপন করা হয়েছে। অসুস্থদের চিকিৎসা সেবার জন্য ৫০ শয্যা বিশিষ্ট অস্থায়ী হাসপাতালে ২জন এমবিবিএস ডাক্তার এবং শতাধিক মুজাহিদকে দায়িত্ব দেয়া হয়েছে।

আইন শৃঙ্খলা রক্ষায় স্থানীয়ভাবে ৫ শতাধিক মুজাহিদ ছাড়াও র‌্যাব-পুলিশ এবং গোয়েন্দা সংস্থা সর্বোচ্চ সতর্ক রয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *